Movieমুভি

মালাজগিরত ১০৭১ বাংলা সাবটাইটেল

ফুল মুভিটি দেখতে নিচে যান

মালাজগির্দে‌র যুদ্ধ ১০৭১ সালের ২৬ আগস্ট বর্তমান তুরস্কের মাশ প্রদেশের মালাজগির্দ‌ের নিকটে সেলজুক সাম্রাজ্য ও বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের মধ্যে সংঘটিত হয়। এই যুদ্ধে বাইজেন্টাইনরা পরাজিত হয় এবং সম্রাট চতুর্থ রোমানোস বন্দী হন যার ফলে আনাতোলিয়া, আর্মেনিয়ায় বাইজেন্টাইন কর্তৃত্ব হ্রাস পায়, এবং আনাতোলিয়া তুর্কিদের হস্তগত হওয়ার পথ প্রশস্ত হয়।

মালাজগির্দ‌ পরাজয় বাইজেন্টাইনদের জন্য বিপর্যয় সৃষ্টি করে। এর ফলে গৃহযুদ্ধ ও অর্থনৈতিক সংকট দেখা দেয় ফলে বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের সীমান্ত রক্ষার সক্ষমতা হ্রাস পায়। ফলে তুর্করা ব্যাপক সংখ্যায় মধ্য আনাতোলিয়ায় প্রবেশ করতে থাকে। ১০৮০ সাল নাগাদ প্রায় ৭৮,০০০ বর্গকিলোমিটার (৩০,০০০ ) এলাকা সেলজুক তুর্কিরা অধিকার করে নেয়।

আভ্যন্তরীণ গোলযোগ দূর করে বাইজেন্টিয়ামে স্থিতিশীলতা আনার জন্য প্রথম আলেক্সিওসের তিন দশক সময় লেগেছিল। ইতিহাসবিদ থমাস এসব্রিজ বলেন: “১০৭১ সালে সেলজুকরা মালাজগির্দে‌র যুদ্ধে (পূর্ব এশিয়া মাইনরে) একটি রাজকীয় বাহিনীকে ধ্বংস করে, এবং ইতিহাসবিদরা একে গ্রীকদের জন্য ভয়াবহ বিপর্যয় হিসেবে আর না ধরলেও এটি ছিল একটি যন্ত্রণাদায়ক বিপত্তি।”ইতিহাসে এই প্রথম কোনো বাইজেন্টাইন সম্রাট একজন মুসলিম সম্রাটের কাছে বন্দী হন।

মধ্যযুগে বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্য শক্তিশালী থাকা সত্ত্বেও নবম কনস্টান্টাইন এবং দশম কনস্টান্টাইনের শাসনামলে সামরিক দুর্বলতার কারণে এর অবনতি শুরু হয়। প্রথম আইজ্যাকের দুই বছরের সংক্ষিপ্ত শাসনামলে সেনাবাহিনীর সংস্কারের ফলে পতন কিছুটা দীর্ঘা‌য়িত হয়। নবম কনস্টান্টাইনের শাসনামলে সেলজুক তুর্কিরা আর্মেনীয় রাজধানী আনি অধিকারের প্রচেষ্টা চালালে বাইজেন্টাইনরা সর্বপ্রথম সেলজুকদের সাথে জড়িয়ে পড়ে।

কনস্টান্টাইন সেলজুকদের সাথে চুক্তি করেন এবং তা ১০৬৪ সাল পর্যন্ত টিকে ছিল। এরপর তারা আনি অধিকার করে এবং ১০৬৭ সালে কায়সারিয়াসহ আর্মেনিয়ার বাকি অংশ অধিকার করে নেয়।

১০৬৮ সালে চতুর্থ রোমানোস ক্ষমতালাভ করেন এবং দ্রুত কিছু সামরিক সংস্কারের পর সেলজুকদের বিরুদ্ধে অভিযানের জন্য ম্যানুয়েল কোমনেনাসকে দায়িত্ব দেন। ম্যানুয়েল সিরিয়ার মানবিজ দখল করেন। এরপর তিনি কোনিয়ায় একটি তুর্কি আক্রমণ প্রতিহত করেন,[৮] কিন্তু এরপর সুলতান আল্প আরসালানের কাছে পরাজিত ও বন্দী হন। সাফল্য সত্ত্বেও আল্প আরসালান ১০৬৯ সালে বাইজেন্টাইনদের সাথে একটি শান্তিচুক্তি করেন। এসময় মিশরের ফাতেমীয়রা তার প্রধান প্রতিপক্ষ হয়ে উঠেছিল।

১০৭১ সালের ফেব্রুয়ারি রোমানোস চুক্তি নবায়নের জন্য আল্প আরসালানের কাছে দূত পাঠান। সুলতান এতে সম্মতি দেন। এডেসার অবরোধ তুলে নিয়ে তিনি ফাতেমীয়দের অধিকারে থাকা আলেপ্পোর দিকে যাত্রা করেন। রোমানোস হৃত দুর্গ পুনরুদ্ধারের জন্য আর্মেনিয়ার দিকে একটি বৃহদাকার বাহিনী নিয়ে যাত্রা করেন, ফলে শান্তিচুক্তি ভেঙে যায়।

রোমানোসের প্রতিপক্ষ এন্ড্রোনিকাস ডুকাসও তার সাথে ছিলেন। এই বাহিনীতে পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশের প্রায় ৫,০০০ নিয়মিত বাইজেন্টাইন সৈনিক ও সমসংখ্যক পূর্বাঞ্চলীয় সৈনিক ছিল। রোসেল ডি বাইলেউলের অধীনে ৫০০ ফ্রাঙ্ক ও নরম্যান ছিল। এছাড়াও ছিল কিছু অগুজ তুর্কি, পেচেং ও বুলগেরীয় যোদ্ধা। এন্টিওকের ডিউকের অধীনে ছিল পদাতিকরা। জর্জীয় ও আর্মেনীয় সেনাদের একটি দলও ছিল। সেসাথে ভারানজিয়ান গার্ডদের কিছু সৈনিকও ছিল। সব মিলিয়ে বাহিনীর সদস্যসংখ্যা ছিল ৪০,০০০ থেকে ৭০,০০০

আল্প আরসালান সেলজুক তুর্কিদেরকে বিজয়ে নেতৃত্ব দিয়েছেন।
এশিয়া মাইনরের মধ্য দিয়ে যাত্রা দীর্ঘ ও কষ্টসাধ্য ছিল। নিজের বিলাসবহুল লাগেজ আনার ফলে সেনাদের ভেতরে রোমানোসের জনপ্রিয়তা হ্রাস পায়। এছাড়াও তার ফ্রাঙ্ক যোদ্ধাদের লুঠতরাজের কারণে স্থানীয় জনসাধারণও কষ্ট ভোগ করছিল এবং তিনি তাদের পদচ্যুতও করেননি। তারা ১০৭১ সালের জুন মাসে থিওডসিওপোলিস পৌছায়।

সেখানে সম্রাটের কয়েকজন সেনাপতি সেলজুক এলাকায় প্রবেশ করে অভিযান চালানো এবং আল্প আরসালান প্রস্তুত হওয়ার পূর্বে তাকে পরাস্ত করার পরামর্শ দেন। অন্যদিকে নিকেফোরাস ব্রাইয়েন্নিয়াসসহ অন্যান্যরা অপেক্ষা করার এবং নিজেদের অবস্থান শক্তিশালী করার প্রস্তাব দেন। কিন্তু শেষপর্যন্ত এগিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

আল্প আরসালান দূরে আছেন বা এগিয়ে আসছেন না এমন ধরে নিয়ে রোমানোস ভান হ্রদের দিকে অগ্রসর হন। তিনি দ্রুত মালাজগির্দ‌ অধিকার করতে পারবেন ধারণা করেছিলেন। আল্প আরসালান ইতিমধ্যেই এই এলাকায় ছিলেন। তার সাথে তার মিত্ররা এবং আলেপ্পো ও মসুলের ৩০,০০০ অশ্বারোহী সৈনিক ছিল। আল্প আরসালানের পদক্ষেপ সম্পর্কে রোমানোস ওয়াকিবহাল না থাকলেও আল্প আরসালানের গুপ্তচররা রোমানোসের সঠিক অবস্থান বের করে ফেলে।

সার্ভার ০১

ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে বা ডাউনলোড করতে সার্ভার ০৪-এ যান

সার্ভার ০২

বাইজেন্টাইনদের সাথে শান্তি স্থাপনের পর সেলজুকরা মিশর অভিযানের পরিকল্পনা করে। কিন্তু আলেপ্পোয় আল্প আরসালান বাইজেন্টানদের অগ্রসর হওয়ার খবর পাওয়ার পর তিনি উত্তরে যাত্রা করে বাইজেন্টাইনদের মুখোমুখি হন।
রোমানোস তার সেনাপতি জোসেফ টারকেনিওটেসকে কিছু নিয়মিত সৈনিক, ভারানজিয়ান এবং পেচেং ও ফ্রাঙ্ক যোদ্ধা নিয়ে খলিয়াতের দিকে অগ্রসর হওয়ার নির্দেশ দেন এবং নিজে বাকি বাহিনীকে নিয়ে মালাজগির্দে‌র দিকে অগ্রসর হন। এর ফলে বাহিনীর সক্ষমতা অর্ধেক হয়ে যায়। মুসলিম সূত্র অনুযায়ী জোসেফ টারকেনিওটেসকের বাহিনীকে আল্প আরসালান পরাজিত করেছিলেন। তবে রোমান সূত্রে এই বিষয়ে কোনো উল্লেখ নেই।

সার্ভার ০৩

সার্ভার ০৪

ভিডিওটি ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন

ভিডিও দেখতে পারছেন না? ফেইসবুক ব্রাউজার থেকে লিংকে প্রবেশ করলে ভিডিও দেখতে সমস্যা হবে। তাই ক্রোম, ইউসি ব্রাউজার, ফায়ারফক্স কিংবা অন্য যেকোনো ব্রাউজারে লিংকটি অপেন করে ভিডিও প্লে করুন। দুর্বল নেটওয়ার্কের কারণে ভিডিও বাফার করছে? ইউসি ব্রাউজার দিয়ে সাইটে প্রবেশ করে ভিডিও দেখুন। ইউসি ব্রাউজারে ভিডিও বাফার করবে না। তারপরও যদি কাজ না করে তাহলে তাহলে আপনার ওয়েবসাইটটি রিফ্রেশ করুন এবং কয়েক মিনিট পর আবার ট্রাই করুন। যদি ডিভাইসে এড ব্লকার অন করা থাকে, অফ করে দিন নাহয় ভিডিও দেখতে পাবেন না। ভিডিওর প্লে বাটন দেখতে না পেলে, ভিপিএন – ইউএস, জার্মানি, ইউরো ইত্যাদি রিজিয়নে কানেক্ট করে ট্রাই করুন।

(বিস্তারিত)

যারা দেখতে পারছেন না, তারা উপরের পন্থাগুলো অনুসরণ করলে, আর সমস্যা হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।

Back to top button