উমর সিরিজ বাংলা

উমার সিরিজ এপিসোড ০২ বাংলা সাবটাইটেল

সিজন ০১

এপিসোড ০২

এপিসোডটি দেখতে নীচে যান

এই সিরিজের সব এপিসোড আমাদের ওয়েবসাইটে দেখতে পাবেন

সুপ্রিয় দর্শকবৃন্দ, মনে রাখবেন—”উমর সিরিজ” নামক সিরিজটি কখনোই বিশ্বাসীদের নেতা, ইসলামের খলিফা হযরত উমর রা. এর চেহারা, দৈহিক গঠন, ব্যক্তিগত বৈশিষ্ট্য কিংবা চরিত্র চিত্রিত করে না। এই সিরিজটি কেবল সেসময়ে ঘটে যাওয়া ঐতিহাসিক ঘটনাগুলো চিত্রিত করার চেষ্টা করে।

মনে রাখবেন, একটা সিরিজ কখনো একজন ব্যক্তির বৈশিষ্ট্য চিত্রায়ণ করতে পারে না। তাই সিরিজটি দ্বারা প্রভাবিত হয়ে সিরিজে প্রদর্শিত অভিনেতাকে উমর রা. ভাবা থেকে বিরত থাকুন।

ত্রিশ পর্বের এই সিরিজটি ইসলাম ধর্মের দ্বিতীয় খলিফা হযরত ওমর ফারুক-এর জীবনের আঠারো বছর থেকে শুরু করে মৃত্যুকালীন সময়ের মধ্যকার প্রবহমান প্রাসঙ্গিক ও পারিপার্শীয় সমসাময়িক ঘটনাবলির উপর ভিত্তি করে নির্মাণ করা হয়। এই ধারাবাহিকটি ইসলামিক ব্যক্তিত্ব ইউসূফ আল-কারযাভি ও সালমান আল আওদাহ-এর প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠপোষকতায় নির্মিত হয়, পাশাপাশি পুরো আরব ও ইসলামিক বিশ্বজুড়ে এটি ব্যাপক বিতর্ক এবং আলোচনা-সমালচনার জন্ম দেয়।

মরোক্কোতেই সিরিজটির সকল দৃশ্যের শ্যুটিং হয় এবং মারাক্কেশ, তাঞ্জিয়ার, এল জাদিদা, কাসাব্লাংকা এবং মহাম্মাদিয়ায় এর প্রধান দৃশ্যগুলো ধারণ করা হয়। ২০১২ সালের ২০শে জুলাই থেকে অর্থাৎ রমজানের ত্রিশদিন ব্যাপী মধ্যপ্রাচ্যের দেশসমূহে এবং একইসঙ্গে তুরস্কের এটিভি ও ইন্দোনেশিয়ার এমএনসিটিভিতে প্রচারিত হয়। এছাড়াও ইউটিউবে এর পর্বগুলো টেলিভিশনে প্রচারের পরপরই ইংরেজি সাবটাইটেল সহ প্রকাশ করা হয়। বলা হয়ে থাকে যে, ২০ কোটি সৌদি রিয়াল ব্যয়ে নির্মিত এ টিভি ধারাবাহিকটি হল এপর্যন্ত নির্মিত আরবি ভাষার সবচেয়ে ব্যয়বহুল টিভি ধারাবাহিক ও আরব বিশ্বে এযাবতকালে নির্মিত সবচেয়ে বড় মাপের টিভি নাট্যকর্ম।

সিরিজটির ২ জন অভিনেতা, হাসান আল-জুন্দি ও মুনা ওয়াসেফ, উভয়েই আবু জাহল এবং হিন্দ বিন্ত উতবাহ চরিত্রে মোস্তফা আক্কাদের মুহাম্মদ, মেসেঞ্জার অফ গড চলচ্চিত্রের আরবী সংস্করণে অভিনয় করেছিলেন।

ধারাবাহিকটির আবহ সঙ্গীত পরিচালনা করেন তুর্কি মিউজিশিয়ান ফাহির আতাকোগলু, যিনি জনপ্রিয় তুর্কি ধারাবাহিক সুলতান সুলেমানের সঙ্গীতায়োজনের জন্য প্রসিদ্ধ। সিরিজের সর্বশেষ পর্বে ওমর এর ছুরিকাঘাতে আহত হওয়ার পর মৃত্যূর পূর্বমূহুর্ত দৃশ্যায়নে “সালামুন” শিরোনামে একটি নাশিদ আবহসঙ্গীত হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে যাতে কন্ঠ দিয়েছেন কুয়েতের বিখ্যাত ক্বারী, তারাবীহ ইমাম ও নাশিদশিল্পী মিশারী রাশিদ আল-আফাসি।

সিরিজটি নিয়ে অধিক বিতর্কের প্রধান কারণ ছিল চার খলিফার প্রত্যক্ষ চরিত্রায়ন, যা পূর্বের কোন সিরিয়ালে করা হয় নি। মুহাম্মাদ সা. এর সময়কালের দৃশ্যায়নে, তার স্ত্রীগণ ও সন্তানগণকে দেখানো হয়নি কিন্তু তার অনেক কর্ম বা কথা পরোক্ষভাবে তার নিকটস্থ সাহাবার কথা ও কাজের মাধ্যমে বোঝানো হয়েছে, কারণ ইসলামী বিশ্বে নবী মুহাম্মাদ সা. ও তার পরিবারের চিত্রায়ন ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা ও তাদের সম্মানের খাতিরে যথাসম্ভব সীমিত এবং সমগ্র বিশ্বেই তা ব্যাপক অস্থিতিশীলতার কারণ হিসেবে বিবেচিত হয়।

যদিও আবু বকরের মৃত্যুর পূর্বের একটি দৃশ্যে আয়েশা কে ছায়া আকারে তার পিতার সঙ্গে নিঃশব্দে আলাপরত অবস্থায় দেখানো হয়। এছাড়া খলিফা ওমরের চরিত্রে অভিনয়কারী অভিনেতা সামের ইসমাইলের ধর্মমত কি তা জানতে সমসাময়িক আরব গনমাধ্যমে যথেষ্ট আলোচনা হয়, তবে সামের ইসমাইল তার সকল সাক্ষাৎকারে এ প্রশ্নের উত্তর দিতে অস্বীকার করেন, বলেন যে, এটি তার ব্যক্তিগত বিশ্বাস, যা অভিনেতা হিসেবে তার পেশাগত অবস্থানের সঙ্গে প্রাসঙ্গিক নয়। (উইকিপিডিয়া)


সার্ভার ০১

ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে বা ডাউনলোড করতে নীচে সার্ভার ০৩-এ যান —

উমার সিরিজ সকল এপিসোড লিংক


সার্ভার ০২

এছাড়া ইউটিউবে অবমুক্ত দৃশ্যধারণের ভিডিওতে দেখা যায়, পরিচালক হাতেম আলী ধূমপানরত অবস্থায় শিল্পীদের বিভিন্ন নির্দেশনা দিচ্ছেন। ওমরের ইসলাম গ্রহণের দুটি বর্ননা রয়েছে, সিরিজে ওমরের ইসলাম গ্রহণের ক্ষেত্রে অধিক প্রচলিত বর্ননাটি ফুটিয়ে তোলা হয়েছে, যেখানে ওমর তার ভগ্নী ও ভগ্নিপতিকে ইসলাম গ্রহণের কারণে মারতে এসে সেখানে কুরআন পড়ে ইসলাম গ্রহণ করে। কিন্তু সালাফি আলেমগণ উক্ত বর্ননাকে তুলনামূলক কম নির্ভরযোগ্য বা ভূল এবং অপর বর্ননাটিকে তুলনামুলক অধিক নির্ভরযোগ্য বা লসঠিক বলে বর্ননা করেন, যেখানে ওমর রাতে মক্কার পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় নবী মুহাম্মদকে নামাজরত অবস্থায় কুরআন পাঠ করতে শুনে মুগ্ধ ও প্রভাবিত হয়ে স্বতস্ফূর্তভাবে ইসলাম গ্রহণ করে।

নাটকে গোড়ালির নিচে পুরুষ সাহাবীদের কাপড় পরিহিত দেখানো হয়, যা ইসলামে নিষিদ্ধ, উপরন্তু উক্ত আমলে আরবে পুরুষ ও নারীদের পাজামার প্রচলন অপ্রতুল ছিল, সেসময় নিম্নবাস হিসেবে লুঙ্গি প্রচলিত ছিল কিন্তু এখানে সকল সাহাবী চরিত্রকে পাজামা পরিহিত অবস্থায় দেখানো হয়েছে। ইয়ামামার যুদ্ধে খালিদ ও অন্যান্য সাহাবা, ইয়া মুহাম্মাদা বা হে মুহাম্মাদ/মুহাম্মাদের জন্য বলে তাকবীর দেয়, যার ঐতিহাসিক সত্যতা সালাফি আলেমদের নিকট বিতর্কিত, কারণ আল্লাহ ছাড়া অন্য কারও নামে তাকবীর বলা শিরকের অন্তর্ভুক্ত।[৭] ঐতিহাসিক সূত্রে বলা আছে উমাইয়া ইবনে খালাফকে বদরের যুদ্ধে দুজন আনসার সাহাবী বিলাল -র নির্দেশনা অনু্যায়ী হত্যা করেছিল, কিন্তু সিরিজে উমাইয়াকে বিলাল নিজ হাতে হত্যা করতে দেখানো হয়েছে। (উইকিপিডিয়া)

 



সার্ভার ০৩

ভিডিও দেখতে পারছেন না? ফেইসবুক ব্রাউজার থেকে লিংকে প্রবেশ করলে ভিডিও দেখতে সমস্যা হবে। তাই ক্রোম, ইউসি ব্রাউজার, ফায়ারফক্স কিংবা অন্য যেকোনো ব্রাউজারে লিংকটি অপেন করে ভিডিও প্লে করুন। তারপরও যদি কাজ না করে তাহলে তাহলে আপনার ওয়েবসাইটটি রিফ্রেশ করুন এবং কয়েক মিনিট পর আবার ট্রাই করুন। যদি ডিভাইসে এড ব্লকার অন করা থাকে, অফ করে দিন নাহয় ভিডিও দেখতে পাবেন না। ভিডিওর প্লে বাটন দেখতে না পেলে, ভিপিএন – ইউএস, জার্মানি, ইউরো ইত্যাদি রিজিয়নে কানেক্ট করে ট্রাই করুন। ভিডিও ডাউনলোড সম্পর্কে জানতে বিস্তারিত দেখুন।

(বিস্তারিত)
যারা দেখতে পারছেন না, তারা উপরের পন্থাগুলো অনুসরণ করলে, আর সমস্যা হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। তবুও শুধুমাত্র বিশেষ প্রয়োজনে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন।
Back to top button